Home Uncategorized শেখ হাসিনার মেধা প্রজ্ঞা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে উন্নয়ন-প্রগতির শীর্ষে বাংলাদেশ: ইঞ্জিনিয়ার মো:...

শেখ হাসিনার মেধা প্রজ্ঞা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে উন্নয়ন-প্রগতির শীর্ষে বাংলাদেশ: ইঞ্জিনিয়ার মো: জসীম উদ্দিন

359
0
SHARE

জাগো তরুন নিজস্ব প্রতিবেদক : শেখ হাসিনার মেধা প্রজ্ঞা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে উন্নয়ন-প্রগতির শীর্ষে বাংলাদেশ বললেন । চাঁদপুর-১ কচুয়া আসনে আগামী দ্বাদশ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী । কচুয়ার কৃতি সন্তান , বঙ্গবন্ধুর স্নেহ প্রাপ্ত ,জে বি ওয়ান কর্পোরেশনের সন্মানিত চেয়ারম্যান ,বিশিষ্ট সমাজসেবক , মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব , ৮০ দশকের সাবেক ছাত্রনেতা , জাপান আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো: জসীম উদ্দিন প্রধান । তিনি বলেন, বাংলাদেশে মানবিকতার জ্বলন্ত উদাহরণ হলেন আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা। যিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এবং আজকে তাঁর বয়স এতো হওয়া সত্বেও সব কিছু বিসর্জন দিয়ে যেভাবে অদৃশ্য শক্তির জন্য তার জীবন যৌবন বিসর্জন দিয়ে আজকে দেশের মানুষের জন্য কাজ করেছেন। এজন্য আমি মনে করি আজকে মমতাময়ী মা এবং জাতির জনকের কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার একজন মানবিকতার একটি জ্বলন্ত উদাহরণ। তিনি হলেন আমাদের পথ নির্দেশক ও পথ প্রদর্শক। তিনি তারা জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে বাজি রেখে এই দেশটাকে কিভাবে উন্নয়নের শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন, সেটা আজকে বিশ্বের সব দেশে অনুকরণীয়। এইজন্যই তিনি আজ নেত্রী থেকে বিশ্ব নেত্রীতে পরিণত হয়েছেন এবং তার যে উন্নয়নের ছোঁয়া আজকে সব দেশে গবেষণার দাবিদার। স্বাধীনতার আগে এদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল ১০০ ডলারের মতো যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশে ২০২১-২২ অর্থবছরে এসে দাঁড়িয়েছে ২০৭১ ডলার যা ভারতকেও ছাড়িয়ে গেছে। আজ বাংলাদেশ বিশ্ব অর্থনীতির রোল মডেল। টানা এক দশক প্রায় ৭ শতাংশ জিডিপি ধরে রাখা বাংলাদেশ ২০৩৫ সালের মধ্যে পৌঁছে যাবে বিশ্বে শক্তিশালী অর্থনীতির ২৫ দেশের তালিকায়। বর্তমানে বিশ্বের ১৬৮টি দেশে কাজ করছেন বাংলাদেশের প্রায় ১ কোটি ৩২ লাখ কর্মী। বিদেশ থেকে রেমিটেন্স অর্জন করা শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান অষ্টম। বাংলাদেশে সর্বোচ্চ রেমিটেন্সের নতুন রেকর্ড গড়েছে এই সরকারের আমলেই। বাংলাদেশের রেমিটেন্স আসার আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং। কিন্তু এ ক্ষেত্রে বিদেশ থেকে দেশে টাকা আনার ক্ষেত্রে ছিলো নানান জটিলতা। জননেত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের গুণে সেই সমস্যাগুলোরও সমাধান করতে সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কাক্সিক্ষত ফলাফল দারিদ্র্য নিরসনের ক্ষেত্রেও ইতিবাচক প্রভাব রাখতে পেরেছে। দারিদ্র্যের হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে। চার দশক আগে দারিদ্র্যের হার ছিল ৭০ শতাংশেরও বেশি। বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। আর বাংলাদেশের এ রূপান্তরের রূপকার শেখ হাসিনা বিশ্বসভায় আপন মহিমায় স্থান করে নেয়া একজন সফল বিচক্ষণ রাষ্ট্রনায়ক। বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং আন্তর্জাতিক নানান ইস্যুতে তাঁর বিচক্ষণ ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব জাতি হিসেবে আমাদের গৌরবান্বিত করেছে। মহামারী করোনা ভাইরাসের থাবায় যখন সারা বিশ্ব হিম শীম খাচ্ছে তখন ও আমাদের প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা বিচলিত হননি , সাহসিকতার সহিত দেশের সর্বস্তরের জনগনকে সংগে নিয়ে করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করে আল্লাহর রহমতে দেশের মানুষকে সেবা দিতে সক্ষম হয়েছেন ।তার এই অবদান বহি: বিশ্বে প্রসংশনীয় এবং দেশের মানুষ চিরদিন স্মরন রাখবে । আসলে সবকিছু সব সম্ভব হয়েছে, তিনি বঙ্গবন্ধুর মানষকন্যা বলেই ।বাবার স্বপ্ন পূরনের লক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here