Home কচুয়া কচুয়ায় সাকিবের মৃত্যু নিয়ে ব্যাপক গুঞ্জন

কচুয়ায় সাকিবের মৃত্যু নিয়ে ব্যাপক গুঞ্জন

1226
0
SHARE
নিহত সাকিব

জাগো তরুণঃ কচুয়া উপজেলার ডুমুরিয়া গ্রামের দরিদ্র রিক্সা ড্রাইভার আব্দুল হালিম মিয়ার পুত্র সাকিবের (১৬) মৃত্যুর রহস্য নিয়ে এলার লোকজনের মধ্যে চলছে নানান গুঞ্জন। সাকিবের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে দায়ের হয় কচুয়া থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা। পুলিশ সাকিবের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে পাঠিয়েছে। কচুয়া থানার পুলিশ বলছে ময়নাতদন্তের রির্পোট প্রাপ্তির ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে কবে নাগাদ ময়না তদন্তের রির্পোট পাওয়া যাবে এ সম্পর্কে পুলিশ কিছু বলতে পারছে না।


এদিকে সাকিবের নিকট আত্মীয়-স্বজনদের বদ্ধমূল ধারনা- সাকিবকে পরিকল্পিত ভাবে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। সাকিবের পিতা দরিদ্র রিক্সা ড্রাইভার আব্দুল হালিম জানায়- তার ছেলে সাকিব উপজেলার সেঙ্গুয়া বাজারে মিজানের আইসক্রিম ফ্যাক্টরিতে কাজ করত। গত ৮ ফেব্রুয়ারী (শনিবার) সকাল ১০টার দিকে সাকিব তার বন্ধু মামুন (১৮) কে সাথে নিয়ে নিজ বাড়িতে এসে ১৫/১৬ মিনিট সময় কাটানোর পর ১ঘন্টার মধ্যেই পুনরায় বাড়ি ফিরে আসবে বলে বন্ধু সহ বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ে। বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে তার বন্ধু মামুন ফোনে জানায়, সাকিব ঘুরে পড়েছে। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হয়েছে। এ খবর পেয়ে আমরা হাসপাতালে ছুটে গিয়ে তার মৃত লাশ দেখতে পাই। কর্তব্যরত ডাক্তার জানায়- হাসপাতালে আনার পূর্বেই সাকিবের মৃত্যু হয়েছে। সাত দিন পেরিয়ে গেলেও তদন্ত-সংশ্লিষ্টরা নিশ্চিত হতে পারছেন না সাকিবকে খুন করা হয়েছে, না সে ঘুরে পড়ে মারা গেছে। এছাড়াও উত্তর মিলছে না বিকেল ৪টা থেকে লাশ পাওয়ার আগ পর্যন্ত কোথায় ছিল সাকিব? ফ্যাক্টরীর মালিক মিজান বলছে- কোথায়, কিভাবে সাকিবের মৃত্যু হয়েছে, তা তার জানা নেই। জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সাকিবের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন হবে কিনা।


সাকিবের পিতা আব্দুল হালিম দাবী করে- তার গলার নিম্মাংশে আঙ্গুলের ছাপ, নাক ভাঙ্গা, মাথার বাম অংশে ফুলা চিহৃ, মুখ ও জিহ্বার মধ্যে বালু দেখতে পাওয়া যায়। এছাড়াও তার পরিহিত প্যান্টে মলমুত্র দেখতে পাওয়া যায়। আব্দুল হালিম আরোও দাবী করে- সে থানায় অভিযোগ দায়ের করতে চাইলেও পুলিশ অভিযোগ নেয়নি। পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের রির্পোট পাওয়া সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


এদিকে সাকিবের মৃত্যুতে তার পিতা-মাতা পাগল প্রায় হয়ে উঠেছে। তার এলাকার মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে চোখের জলে বুক ভাসিয়ে সাকিবের মৃত্যুর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচারের দাবী করছে। বিচারের বানী কি নিরবে নিভৃতে কাঁদবে- এ গুঞ্জনও উঠছে জনমনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here