Home কচুয়া সমাজের জন্য কাজ করাই ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিনের স্বপ্ন

সমাজের জন্য কাজ করাই ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিনের স্বপ্ন

439
0
SHARE

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
চাঁদপুরের কচুয়ার কৃতিসন্তান বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক, শিক্ষানুরাগী জাপান আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও মানবতার ডাক সামাজিক সংগঠনের উপদেষ্টা সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিনের জীবন বৃত্তান্ত সংগ্রহ করতে গেলে তিনি জানান, ১৯৯১ ইং সালে জাপান ইউনিভার্সিটিতে লেখাপড়া শেষ করে কর্ম জীবনের পাশাপাশি আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত হই। আমার ধারনা ছিলো আগে নিজে স্বাবলম্বী হতে হবে। আমি দুর্নীতিকে ঘৃনা করি। পরিশ্রম করে আমি সফল হয়েছি। এখন এলাকার মানুষের জন্য কাজ কারতে চাই। আমি বঙ্গবন্ধুকে খুব সামনে থেকে দেখেছি এবং তার হাতের স্পর্শ পেতে সৌভাগ্য হয়েছিলো আমার। ছোটবেলা থেকে বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির নেতৃত্ব ও আদর্শ উপলদ্ধি করে আসছি। জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানকে আমি অত্যান্ত ভালোবাসি। তাই আমি স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের সাথে জড়িত হই।

আমি ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত কুমিল্লা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করি। ১৯৮১ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি। ২০১৪ সালে সাবেক বানিজ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কর্নেল অবসরপ্রাপ্ত ফারুক খানের অনুমোদিত জাপান আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটিতে সিনিয়র সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হই। আমার এলাকার মানুষ শান্তিপ্রিয়। এখানকার মাটি আওয়ামীলীগের ঘাটি। কচুয়ার উন্নয়নে ড.মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি”র পরামর্শ ক্রমে পাশে থেকে দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গড়ে তুলতে চাই। আমি এলাকার যুব-সমাজকে বিভিন্ন অপকর্ম থেকে মুক্ত রাখতে এলাকার বিভিন্ন মাঠে খেলা-ধুলার আয়োজন করে আসছি। আমি আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান। রাজনীতিই আমার কাছে ভ্যালেন্টারী ওয়ান স্বেচ্ছায় কাজ। আমি শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে দেশ ও কচুয়াবাসীর জন্য কাজ করতে চাই।

পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন ১৯৬৫ ইং সালের ১৫ নভেম্বর কচুয়া উপজেলার পাথৈর ইউনিয়নের মালিগাঁও গ্রামের সম্ভ্রান্ত এক মুসলিম পরিবারে জম্মগ্রহন করেন। তার পিতা হাজী মোঃ আব্দুস ছাত্তার প্রধান। তিনি ১৯৭৫ ইং সালে উপজেলার মধুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সমাপনীতে উত্তির্ণ হয়ে ১৯৭৬ সালে দাউদকান্দি চশই উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। এর পর কচুয়া উপজেলার পাথৈর ইউনিয়নের ততকালিন বারিয়ারা জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখানে লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অঙ্গনে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেন। তখনকার সময় ভিখারির ছেলে নাটক নামে অভিনয়ে দর্শক শ্রোতাদের মধ্যে সাঁড়া জাগিয়ে তুলেছেন। ১৯৭৮ সালে বারিয়ারা জুনিয়র হাইস্কুল থেকে ৮ম শ্রেণী পাশ করে ১৯৭৯ সালে মতলব উপজেলার কাচিয়ারা উচ্চ বিদ্যালয়ে উত্তির্ণ হন। ১৯৮১ সালে কুমিল্লা বোর্ড থেকে প্রথম বিভাগে এসএসসি পরিক্ষায় উত্তির্ণ হন। এখান থেকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে ভর্তি হয়ে ১৯৮৩ সালে প্রথম বিভাগে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তির্ণ হন। পরে তিনি শহীদ সামছুল হক সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তি হন। ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ কারিকরি শিক্ষা বোর্ড ঢাকা প্রথম বিভাগে উত্তির্ণ হন। ১৯৮৭ সালে তিনি উচ্চতর পড়া-শোনার জন্য টোকিও জাপানের একটি ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া শেষ করে কর্ম জীবনের পাশাপাশি আওয়ামীলীগের সাথে সংযুক্ত হন।

উল্লেখ্য যে, ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন ২৬ সেপ্টেম্বর জাপান থেকে এসে ৮ অক্টোবর পূনরায় জাপান চলে যায়। কিন্তু এ অল্প কয়েকদিনের মধ্যে রয়ে যার তার অনেক স্মৃতি ভালবাসা। যার সংক্ষিপ্ত কিছু বিবরণ তুলে ধরা হল-

২৭ সেপ্টেম্বর তিনি শুরুতেই ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন কচুয়ার উন্নয়নের রুপকার সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি ও সাবেক বানিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপির বাসভবনে গিয়ে সাক্ষাত করেন।

২৮ সেপ্টেম্বর সাপ্তাহিক পাঠক সংবাদ পত্রিকার ৩য় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে সভাপতি হওয়ার মধ্য দিয়ে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিনের সমাজের মানুষের সাথে উঠা-বসা, একে অপরের পাশে থাকার কার্যক্রম শুরু হয়।

২৯ সেপ্টেম্বর সকালে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিনের কচুয়াতে যাত্রা। সর্বপ্রথম মায়ের কবর জিয়ারত করে উনার এলাকার একটি মাদরাসা পরিদর্শন করেন এবং ছেলে মেয়ের সুবিধার্থে ১০টি ফ্যান দেওয়ার কথা বলেন। সেখান থেকে চলে আসেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপির পিতা-মাতা ও তাঁর বড় ভাইয়ের কবর জিয়ারত করতে। সেখান থেকে জিয়ারত শেষে চলে আসেন বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় লেখক মোঃ মহসিন হোসাইনের মায়ের কবর জিয়ারত করতে। সেখান থেকে চলে যান সাবেক সাংসদ এড. আব্দুল আউয়াল সাহেবের কবর জিয়ারত করতে। আব্দুল আউয়াল সাহেবের কবর জিয়ারত শেষে চলে যায় এশিয়া মহাদেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠান উজনী মাদরাসার পীর সাহেব কেবলাদের কবর জিয়ারত করতে। কবর জিয়ারত শেষে পূণরায় ঢাকা ফিরে তিনি।

৩০ সেপ্টেম্বর সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ ড.মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি মহোদয়ের গাড়ী বহরে এসে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন এমপি সাহেবের সাথে পালাখান একটি পোগ্রামে যোগদান করেন। সেখান থেকে এমপি সাহেবের দাওয়াতী মেহমান হিসেবে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন এমপি সাহেবের বাসায় দুপুরের খাবার গ্রহন করেন।

১লা অক্টোবর সকালে এমপি সাহেবের সাথে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন চাঁদপুর পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এ একটি প্রোগ্রামে যোগদান করেন। প্রোগ্রাম শেষ করে পালাখাল একটি বাড়িতে মেহমান হিসেবে দুপুরের খাবার গ্রহন করেন। সেখান থেকে কচুয়া বাজারের রেদোয়ান এন্ড মিনি চাইনিজে এসে কচুয়া প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন। মতবিনিময় শেষে কচুয়া প্রেসক্লাব পরিদর্শন করে কিছু আর্থিক অনুদান চেকের মাধ্যমে দেন।

২ অক্টোবর সকাল থেকে সমাজের বিভিন্ন অবহেলিত মানুষদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। বিকেলে মানবতার ডাক সামাজিক সংগঠনের পথশিশু দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন যোগদান করেন।

৩ অক্টোবর সকালে রহিমানগর ফ্রি চিকিৎসা সেবা অনুষ্ঠান ও বিকেলে কচুয়া রেদোয়ান এন্ড মিনি চাইনিজে স্বপ্নীলকন্ঠ সাহিত্য সাংস্কৃতিক পরিষদ কচুয়া শাখার আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন যোগদান করেন। এর মধ্যেই কচুয়া বাজারের ব্যবসায়ীদের কৌশল বিনিময় ও কচুয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) শাহজাহান কামালের সাথে কিছুক্ষণ আলাপচারিতা।

৪ অক্টোবর চাঁদপুরে সাবেক প্রধানমন্ত্রী মিজানুর রহমানের করব জিয়ারত ও সাবেক সংসদ সদস্য করিম পাটোয়ারীর কবর জিয়ারত শেষে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল এর সাথে মতবিনিময় করেন।সেখান থেকে চাঁদপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের কর্মশালায় প্রধান আলোচক হিসেবে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন যোগদান করেন।

৫ অক্টোবর পাথৈর ইউনিয়নে একটি মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয় সেখানে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন। এবং গ্রামের রাস্তা নির্মাণ, মসজিদ নির্মাণ এবং বিভিন্ন সামাজিক কাজে চেকের মাধ্যমে অনুদান প্রদান করেন।

৬ অক্টোবর জাতীয় প্রেসক্লাবে একটি মতবিনিময় সভায় ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন উদ্বোধক হিসেবে যোগদান করেন।

প্রতিদিনেই সকল কাজের মধ্যে রয়েছে সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মানুষদেরকে সহযোগিতা, মসজিদ, মাদরাসা, বিদ্যালয়ে সহযোগিতা। যেগুলো সত্যিই খুব মহৎ কাজ। সমাজের সকল সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের পাশে থাকতে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন সদা প্রস্তুত। ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন সামাজের সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here