সমাজ বদলাতে হলে দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে ॥ ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জসীম উদ্দিন

581
0
SHARE

আমরা একটি উন্নয়নশীল দেশে বসবাস করলেও সময়ের পরিক্রমায় উন্নত দেশের মতো আমাদের চিন্তাভাবনায় পরিবর্তন ঘটছে। তবে একটা জায়গায় আমরা এখনও উন্নতি করতে পারিনি আর তা হল- নারী ও পুরুষের সমতা কিংবা নারীর প্রতি পুরুষের পুরুষতান্ত্রিক আচরণ দূর করা। আমাদের সমাজে একটি শিশু জন্মের পর থেকেই নারী-পুরুষভেদে বৈষম্যের শিকার হয়। দেখা যায়, ছেলে সন্তান জন্ম নিলে অভিভাবকরা খুবই খুশি হন, ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী আজান কিংবা গীতা পাঠ করান। কিন্তু মেয়ে শিশু জন্মগ্রহণ করলে এর কিছুই পালন করা হয় না। আরও লক্ষ্য করা যায়, যখন কোনো পরিবারে ছেলে-মেয়েরা খেতে বসে, সেখানেও ভালো খাবার ছেলের পাতেই যায়। মা নিজে নারী হওয়া সত্ত্বেও ছেলের প্রতি বেশি সমাদর করে থাকেন।এভাবে শৈশব থেকেই একটা ছেলে কিংবা মেয়ে সমাজে তার গুরুত্ব বা গুরুত্বহীনতা বুঝতে শুরু করে। ফলে আমরা যতই নারী-পুরুষ সমান অধিকারের কথা বলি না কেন, তার বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না।
বর্তমানে সব ধরনের কর্মক্ষেত্রে নারীর উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। কিন্তু দুঃখের বিষয়, এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যেখানে নারী সুচারুভাবে কাজ করতে পারছে; বরং সব ক্ষেত্রেই সে পুরুষতান্ত্রিক তার বেড়াজালে আবদ্ধ হয়ে পড়ছে।
জন্মের পর থেকেই নারীকে অবলা মনে করা হয়। বিশেষ করে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর মধ্যে এর প্রভাব বেশি লক্ষ করা যায়। নিজের ঘর থেকে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত, বাস, কর্মক্ষেত্রসহ সব জায়গায় নারীরা হয়রানির শিকার হচ্ছে। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয় ছিনিয়ে আনতে যাদের অবদান অনস্বীকার্য, তাদের প্রতি কেন এমন রূঢ় আচরণ?
আজকাল পত্রিকা খুললেই চোখে পড়ে শিশু ধর্ষণ থেকে শুরু করে নারী নির্যাতনের করুণ দৃশ্যপট। বর্তমানে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রকট আকার ধারণ করেছে। নির্যাতনের শিকার হয়েও অনেক নারী লোকলজ্জার ভয়ে মুখ খোলেন না। এমনকি যারা প্রতিকূলতা কাটিয়ে প্রতিবাদ করেন তারাও সুষ্ঠু বিচার পান না। বরং প্রতিবাদ করতে গিয়েও অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার হন। দিন দিন নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েই চলেছে।এসব অসঙ্গতি দূর করার জন্য নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সমাজের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। যেখানেই দেখা যাবে নারীর প্রতি সহিংস আচরণ হচ্ছে কিংবা নারী নির্যাতনের শিকার হচ্ছে, সেখানেই প্রতিবাদ করতে হবে। প্রতিরোধ করতে হবে। তাহলেই নারীর প্রতি সহিংসতা দূর করা সম্ভব হবে।
কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিখ্যাত উক্তি- ‘পৃথিবীতে যা কিছু মহান সৃষ্টি চিরকল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর।’ পৃথিবীর কোনো কিছুই একা পুরুষের পক্ষে সম্পাদন করা সম্ভব হয়নি, আর হতেও পারে না। কোনো জাতিই নারীদের দমিয়ে রেখে উন্নতি করতে পারে না। এ জন্য সমাজ তথা দেশের উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। নারীদের অধিকার আদায়ে সচেতন হতে হবে। পুরুষতান্ত্রিক মনোভাব পরিবর্তন করতে পারলেই এগিয়ে যাবে সমাজ, এগিয়ে যাবে দেশ। আমাদের লক্ষ্য হোক, দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করে দেশের অগ্রযাত্রায় নারী-পুরুষকে সমান অবদান রাখতে সহায়তা করা। আসুন, আমরা সবাই একতাবদ্ধভাবে নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ করি, সুষ্ঠু ও সুন্দর সমাজ গড়ি।
লেখক পরিচিতিঃ
গবেষক, কলামিস্ট ও রাজনৈতিকবিদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ মানবতার ডাক সামাজিক সংগঠন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here